1. admin@atvnews24.com : admin : Ashraf Iqbal
  2. bandpothik683@gmail.com : Asif Badhan : Asif Badhan
  3. smshorifgz@gmail.com : Shorif Gazi : Shorif Gazi
শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০৩:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দ্রুত পানিবন্দি মানুষদের উদ্ধারের ব্যবস্থা করুন : কাইয়ুম চৌধুরী শার্শায় বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজানুর রহমান জালালের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন শ্রীবরর্দীতে ৫০ পিছ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ইউপি সদস্য গ্রেফতার সিলেট সিটি কর্পোরেশন ওয়ার্ড সচিব এসোসিয়েশনের কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন হজ শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য মানুষকে দেখানোর জন্য নয় : মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী এমপি সিলেট জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভায় রাজিব আহসান আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনাকে দেশের মানুষ ঘৃনাভরে প্রত্যাখান করেছে শহিদ জিয়া স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ শুরু করেন: এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী ধামইরহাটে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ধামইরহাটে গ্রাম আদালত কার্যক্রমের অগ্রগতি বিষয়ে দ্বি-মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে আদিবাসী শিশু ধর্ষণের দায়ে ধর্ষক ফাহিম গ্রেপ্তার

শুভ নববর্ষ

এটিভি নিউজ ২৪ ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৬২ বার পঠিত

এটিভি নিউজ২৪ ডেস্ক : আজ পয়লা বৈশাখ, বাংলা সনের প্রথম দিন। স্বাগতম ১৪৩১ বাংলা নববর্ষ! শিশু-যুবা-বৃদ্ধসহ সব বয়সের এবং সব শ্রেণীর মানুষ এ দিনটি উদযাপন করে। বাংলা নববর্ষ উদযাপিত হয় উৎসবমুখর পরিবেশে। নববর্ষ উদযাপন বাঙালি সংস্কৃতির বিশেষ অনুষঙ্গ হয়েছে। দিনটি উদযাপনের জন্য সরকারি-বেসরকারি, সামাজিক-সাংস্কৃতিক বিভিন্ন সংগঠন-সংস্থা বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।

বাংলা নববর্ষ উদযাপন বাঙালি সমাজ ও সংস্কৃতির একটি অন্যতম উপাদান। এ উৎসবের প্রধান অনুষঙ্গ বৈশাখী মেলা। বাংলা নববর্ষকে কেন্দ্র করে গ্রাম-গঞ্জে বৈশাখী মেলা বসে। এ মেলায় কৃষিজ পণ্য, কুঠির শিল্প দ্রব্য, মৃৎ ও হস্তশিল্প দ্রব্য প্রয়োজনীয় ও অপ্রয়োজনীয় আসবাবপত্র, খেলনা ইত্যাদি ক্রয়-বিক্রয়ের ধুম পড়ে। আগের দিনে মেলায় ষাঁড়ের লড়াই, মোরগের লড়াই, লাঠি খেলা, বলীখেলা ইত্যাদি বিনোদন অনুষ্ঠান প্রদর্শনী হতো। তখন মেলা ছিল বাঙালির প্রাণের উৎস। মেলা উপলক্ষে আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে বেড়ানো ও আপ্যায়নের ব্যবস্থা হতো। আর বিবাহিতা মেয়েরা বাপের বাড়িতে নাইওর যেত। আবালবৃদ্ধবণিতা সবাই মেলায় আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে উঠত। আগের দিনে মেলার সময় বাংলার গ্রামে গ্রামে আনন্দের ধুম বয়ে যেত। মেলায় লাঙল, জোয়াল, মইসহ বিভিন্ন কৃষি সরঞ্জামাদি, গৃহস্থালির প্রয়োজনীয় মাটির হাঁড়ি-পাতিলসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র, শিশুদের খেলাধুলার জন্য ঘুড়ি, মাটির তৈরি হাতি-ঘোড়া ইত্যাদি বেচা-কেনা হতো। মেয়েদের হাতের চুড়ি, কানের দুল, গলার হার, প্রসাধনী সামগ্রীও মেলায় বেচাকেনা হতো। এ ছাড়া জুড়ি-বুন্দি, জিলাপি, রসগোল্লা ইত্যাদি মুখরোচক খাবারের সমারোহ তো ছিলই। তবে সব মেলা নববর্ষ উপলক্ষে পয়লা বৈশাখে কিংবা একই দিনে হতো না বরং চৈত্র সংক্রান্তি, বারুনিসহ বিভিন্ন নামে বিভিন্ন সময়ে হতো। নববর্ষ উপলক্ষে আমানি, রাজপুণ্যাহ, হালখাতা, গাজনের গান ইত্যাদি গ্রামীণ অনুষ্ঠান মাসজুড়ে চলত।

বাংলা সনের ইতিহাস খুব বেশি দিনের নয়। তাই স্বাভাবিক কারণেই বাংলা নববর্ষের উৎসব-সংস্কৃতিও খুব পুরনো নয়। কিন্তু সাম্প্রতিক কিছু লোক বাংলা নববর্ষে সেন যুগীয় (খ্রিষ্টীয় একাদশ-দ্বাদশ শতকের) ব্রাহ্মণ্য সংস্কৃতিকে বাংলা নববর্ষের সংস্কৃতি বলে অপপ্রচার করছে। আর এ অপপ্রচারের ফাঁদে পড়ে সহজ-সরল অনেক বাঙালি ঐসব অপসংস্কৃতিকেই বাংলা নববর্ষের সংস্কৃতি হিসেবে পালন করছে। মুসলিম আমলের (১২০৩-১৭৫৭ খ্রি.) বাংলা সাহিত্যে বাংলা নববর্ষভিত্তিক কোনো সাহিত্য নেই। ইংরেজ আমলের (১৭৫৭-১৯৪৭ খি.) সাহিত্যেও বাংলা নববর্ষভিত্তিক কোনো রচনা পাওয়া যায় না। বিশ শতকের প্রথমার্ধেও বাংলা ‘নববর্ষ’ সাহিত্যে তেমন কোনো প্রভাব বিস্তার করতে পারে নাই। তাই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা-গানে ‘বৈশাখ’ ‘পুণ্যাহ’ বিষয় থাকলেও বাংলা ‘বর্ষবরণ’ উৎসবের বিষয় নাই। একইভাবে কাজী নজরুল ইসলামের সাহিত্যে পারস্যের ‘নওরোজ’ অনুষ্ঠানের উল্লেখ থাকলেও বাংলা ‘নববর্ষ’ বা বর্ষবরণ’ উদযাপনের বিষয় নাই। অর্থাৎ গত শতাব্দীর প্রথমার্ধের বাংলা সাহিত্যে ‘নববর্ষ উৎসব’ প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি। অবশ্য তখন যে ‘নববর্ষ’ বা ‘বর্ষবরণ’ ছিল না বিষয়টি তেমন না।

তবে তৎকালে ‘বর্ষবরণ’ বা ‘নববর্ষ’ উদযাপন ছিল অনাড়ম্ভরপূর্ণ ও জৌলুশহীন। ঘরোয়া পরিবেশে পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়-স্বজনের মধ্যেই নতুন বছরের প্রথম দিনে ভালো খাবার আয়োজন-আপ্যায়ন এবং নতুন পোশাক পরার ‘বর্ষবরণ’ বা ‘নববর্ষ’ উদযাপন সীমাবদ্ধ ছিল। বর্তমানের মতো এত জমকালো অনুষ্ঠান তৎকালে ছিল না। মিষ্টান্ন বা মিঠা জাতীয় দ্রব্য দিয়ে ‘মিঠামুখ’ করানো এবং অপেক্ষাকৃত ভালো খাবারের আয়োজন করা হতো ‘বর্ষবরণ’ বা ‘নববর্ষ’ দিনে। তৎকালীন বাঙালি সমাজে প্রচলিত ধারণা ছিল বছরের শুরুর দিন ‘মিঠামুখ’ করলে সারা বছর মুখ মিঠা থাকবে এবং এদিন ভালো খাবার খেলে সারা বছর অনুরূপভাবে ভালো খাবার খাওয়া যাবে। কুসংস্কার হলেও বাঙালিরা এ বিশ্বাসের ভিত্তিতে ‘নববষর্’ দিনে অপেক্ষাকৃত ভালো খাবারের আয়োজন ও ভালো পোশাক পরিধান করে। কালের পরিক্রমায় বছরের প্রথম দিনে ভালো খাবারের আয়োজন-আপ্যায়ন, নতুন পোশাক পরা, হিন্দুদের পূজা-অর্চনা, মুসলমানদের মিলাদ-মাহফিল-দোয়া অনুষ্ঠান ইত্যাদির মাধ্যমে বাংলা ‘নববর্ষ’ ‘বর্ষবরণ’ উদযাপনের উৎপত্তি ঘটে। আর ইংরেজ শাসনামল অবসানের পর কালক্রমে ‘নববর্ষ’ উদযাপন উৎসবে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন ও তৎপরবর্তীকালের ঘটনাপ্রবাহ বাংলা ‘নববর্ষ’ উদযাপনকে ত্বরান্বিত ও বিস্তৃত করেছে।

পহেলা বৈশাখে রমনা বটমূল ও ঢাবিকেন্দ্রিক বন্ধ থাকবে যেসব সড়ক
পহেলা বৈশাখ উদযাপন উপলক্ষে রমনা বটমূল ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এলাকায় ভোর ৫টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত কিছু এলাকাসমূহে রাস্তা বন্ধ/রোড ডাইভারশন দেয়া হবে।
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক রমনা বিভাগের পক্ষ থেকে দেয়া ডাইভারশন পয়েন্টগুলো হচ্ছে- বাংলামোটর ক্রসিং, মিন্টো রোড ক্রসিং, অফিসার্স ক্লাব ক্রসিং, কাকরাইল চার্চ ক্রসিং, কদম ফোয়ারা ক্রসিং, ইউবিএল ক্রসিং, দোয়েল চত্ত্বর ক্রসিং, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টার ক্রসিং, জগন্নাথ হল ক্রসিং, ভাস্কর্য ক্রসিং, নীলক্ষেত ক্রসিং ও কাঁটাবন ক্রসিং।

যানবাহন চলাচলের বিকল্প রাস্তা
মিরপুর-ফার্মগেট হতে শাহবাগ অভিমুখী যাত্রীবাহী যানবাহন বাংলামোটর-মগবাজার হয়ে গন্তব্যে পৌঁছাবে, বঙ্গবাজার-হাইকোর্ট হতে মৎস্য ভবন অভিমুখী যাত্রীবাহী যানবাহন কদম ফোয়ারা-ইউবিএল ক্রসিং হয়ে গন্তেব্যে পৌঁছাবে, জিরো পয়েন্ট-কদম ফোয়ারা হতে মৎস্য ভবন অভিমুখী যানবাহন ইউবিএল-নাইটিংগেল ক্রসিং হয়ে গন্তব্যে পৌঁছাবে, শান্তিনগর-রাজমনি হতে গুলিস্তান ও সদরঘাট অভিমুখী যানবাহন নাইটিংগেল-ইউবিএল ক্রসিং হয়ে গন্তেব্যে পৌঁছাবে।

সম্মানিত নগরবাসীকে উল্লিখিত সময়ে উপরোক্ত এলাকা/রোডগুলো পরিহার করে বিকল্প রাস্তা ব্যবহার করার জন্য ডিএমপির পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।

Facebook Comments Box
এই ক্যাটাগরির আরও খবর